আমরা সরকারের সমালোচনাও করি, ভালো দিকও তুলে ধরি: আহমেদ আকবর সোবহান

বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান বলেছেন, আমাদের পত্রিকা কিন্তু প্রো-পজিটিভ। আমরা সরকারের সমালোচনা করি। সেই সঙ্গে আবার সরকারের ভালো দিকগুলিও তুলে ধরি। ভালো হলে সেটার প্রশংসা করি আমরা এবং নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবিদার সরকার।

বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর বসুন্ধরায় জনপ্রিয় পত্রিকা বাংলাদেশ প্রতিদিনের প্রতিনিধি সম্মেলনে এসব কথা বলেন বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান। এসময় উপস্থিত ছিলেন কালের কণ্ঠ সম্পাদক ও ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া পরিচালক ইমদাদুল হক মিলন, বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম, নির্বাহী সম্পাদক পীর হাবিবুর রহমান।

এসময় আহমেদ আকবর সোবহান বলেন, শত শত পত্রিকা কিন্তু হারিয়ে গেছে। এসব পত্রিকা হারিয়ে যাওয়ার পেছনের প্রধান কারণ হচ্ছে তারা সেরকম মনোযোগী হয়নি কিংবা ভেবেছে যে হয়ত এভাবেই যাবে সারাজীবন। কিন্তু বর্তমানের এই প্রতিযোগিতামূলক বাজারে বিশেষ করে পত্রিকা, টেলিভিশন, রেডিও এগুলো থ্যাংকলেস জব। তারা যযতোই ভালো কাজ করুক না কেন একদিন খারাপ হলে ওই খারাপটাই সবাই তুলে ধরবে আবার কেউ বলবে না। সুতরাং এটা অত্যন্ত প্রতিযোগিতামূলক ব্যাপার। বিশেষ করে বসুন্ধরা গ্রুপের কাছে মানুষের আশাটা অনেক বেশি।

‘আমি চাই সত্য চিরদিন সত্য, সত্যের কোনো বিকল্প নাই। সত্য যত কঠিন হোক, অপ্রিয় হোক … আমরা অনেক নিউজ করেছি কেউ হয়ত পছন্দ করেনি কিন্তু বাস্তবিকই সত্য।’

বসুন্ধরা গ্রুপ চেয়ারম্যান বলেন, আমাদের টিকে থাকতে হবে। বাংলাদেশ যতদিন আছে ইনশাল্লাহ আমরা টিকে থাকবো। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আমরা এদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবো। আমি আগেও বলেছি, আমাদের পত্রিকা হবে বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিং। বাংলাদেশের ভালো যেগুলি সেগুলি বিশ্ব দরবারে তুলে ধরতে হবে। বাংলাদেশের ভালোগুলি ডেফিনিটলি আমাদের ব্র্যান্ডিং করতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা ডেফিনিটলি সরকারের সমালোচনা করি, ভালো-মন্দ- আমাদের কাছে যেটা দৃষ্টিকটু মনে হয় যেটা সরকারের জন্য ভালো না সেটা আমরা লিখি তারপরও সিদ্ধান্ত-দায়িত্ব সরকারের। আমরা তো আর সরকার নয়, আমরা দিক নির্দেশনা দিতে পারি, ভালো বলতে পারি, মন্দ বলতে পারি। আমাদের ইন্ডিপেন্ডেন্ট মতামতও দিতে পারি। কিন্তু দায়-দায়িত্ব নিঃসন্দেহে সরকারের।

তিনি বলেন, একটা সময় ছিলো নেগেটিভ না লিখলে পত্রিকা চলবে না। আমাদের পত্রিকা কিন্তু প্রো পজিটিভ। আমরা সরকারের সমালোচনা করি এবং সরকারের ভালো দিকগুলিও আমরা তুলে ধরি। সরকারের যেসব জিনিস ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে সেটা থেকে আমরা আগেই সাবধান করি। ভালো হলে আমরা সেটার প্রশংসা করি। এবং সরকার নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবিদার। ভালোটা ভালো বলবো, মন্দ হলে মন্দ বলবো। আলো থাকলে আলো হবে, অন্ধকার হলে অন্ধকার হবে।