হিলারিকে পাশে চান ব্লুমবার্গ

যুক্তরাষ্ট্রের আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়তে চান নিউ ইয়র্কের সাবেক মেয়র মাইকেল ব্লুমবার্গ। আর সাবেক ফার্স্ট লেডি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনকে রানিংমেট করে পূর্ণাঙ্গ শক্তি নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে নামতে চাচ্ছেন ব্লুমবার্গ।

ইতিমধ্যে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে প্রচারণায় প্রায় ৩৫ কোটি মার্কিন ডলার ব্যয় করেছেন ব্লুমবার্গ। তিনি জানিয়েছেন, ট্রাম্পকে হারাতে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার খরচ করতে প্রস্তুত আছেন। ইতিমধ্যে টুইটারে ট্রাম্পের সঙ্গে বাক্যযুদ্ধে জড়িয়েও গেছেন তিনি।

গত শনিবার দ্য দ্রুজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাবেক ফার্স্ট লেডি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনকে তার রানিংমেট করার চিন্তাভাবনা করছেন ব্লুমবার্গ। ব্লুমবার্গের যোগাযোগবিষয়ক পরিচালক জ্যাসন শেচেটার এই খবরকে অস্বীকার করেননি।

তিনি বলেছেন, আমরা এখন প্রাইমারি ইলেকশন এবং বিতর্কের ওপরই জোর দিচ্ছি। ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী কাকে করা হবে সে বিষয়ে ভাবছি না। তবে ব্লুমবার্গের অভ্যন্তরীণ জরিপ বলছে, যদি এই জুটি হয় তাহলে ডেমোক্র্যাট দলের জন্য তা দুর্ধর্ষ শক্তিতে রুপান্তরিত হবে।

দ্রুজের এই খবর প্রকাশের কিছুক্ষণ পর ব্লুমবার্গ এক টুইট বার্তায় বলেন, আমার পাশে যদি কোনো বিচক্ষণ নারী না থাকতেন তবে আজ আমি এখানে পৌঁছতে পারতাম না। আমি তাদের নেতৃত্ব, পরামর্শ এবং অবদানের ওপর অনেক নির্ভর করেছি। তবে হিলারিকে রানিংমেট করার বিষয়ে তিনি কোনো কথা বলেননি।

এদিকে বার্নি স্যান্ডার্স ব্লুমবার্গের সমালোচনা করে শনিবার লাস ভেগাসে এক সমাবেশে বলেন, বিলিওনেয়াররা কোটি কোটি ডলার খরচ করে নির্বাচিত হওয়ার চেষ্টা করছেন; কিন্তু ব্লুমবার্গ ভোটাদের মধ্যে সাড়া ফেলতে পারবেন না।

সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে হিলারি ক্লিনটনকে প্রশ্ন করা হয়েছিল ভাইস প্রেসিডেন্ট হওয়ার প্রস্তাব এলে কী করবেন। জবাবে হিলারি বলেন, আমি দেশের জন্য কাজ করায় বিশ্বাসী। তিনি সম্ভাবনাকে নাকচ করেননি।