বাউফলে মা ইলিশ রক্ষার অভিযানে ০৭ জেলের কারাদন্ড।

পটুয়াখালী র‌্যাব-৮, সিপিসি-১ ও উপজেলা নির্বাহী আফিসার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট, বাউফলের যৌথ উদ্যোগে তেঁতুলিয়া নদীতে রাতভর মোবাইল কোর্ট অভিযান চালিয়ে ০৭ জন অসাধু জেলেকে আটক করা হয়েছে ꫰

রবিবার (০১ অক্টোবর) দিবাগত রাত আটটা থেকে ভোর পাঁচটা পর্যন্ত সরকার কর্তৃক ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম ইলিশ মাছ আহরণ, পরিবহন, মজুদ, বাজারজাতকরণ, ক্রয়-বিক্রয় ও বিনিময় নিষিদ্ধ থাকা সত্ত্বে মাছ ধরার অপরাধে বাউফলের তেঁতুলিয়া নদীতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ২,০০০ মিটার কারেন্ট জাল ও ২০ কেজি ইলিশ মাছ জব্দ করা হয়।

এসময় মা ইলিশ মাছ ধরার অপরাধ আসামী ১/ মোঃ সবুজ মোল্লা, পিতা-মোঃ কাদের মোল্লা, সাং-শিয়াল ঘুনী, থানা-বাকেরগঞ্জ꫰ ২/ মোঃ হাসান খান, পিতা-জাহাঙ্গীর খান, সাং-শিয়ালঘুনী, থানা-বাকেরগঞ্জ꫰ ৩/ মোঃ আব্দুল আজিজ, পিতা-মোঃ রাজ্জাক পালোয়ান, সাং-ঘুরচাকাঠি, থানা-বাউফল꫰ ৪/ শংকর দাস, পিতা-রামচন্দ্র দাস, সাং-কাছিপাড়া, থানা-বাউফল꫰ ৫/ মোঃ খোকন হাওলাদার, পিতা-মোঃ মকবুল হাওলাদার, সাং-কাছিপাড়া, থানা-বাউফল꫰ ৬/ মোঃ শাহাবুদ্দীন বিশ্বাস, পিতা-মোঃ সোবহান বিশ্বাস, সাং-কাছিপাড়, থানা-বাউফল এবং ৭/ মোঃ আব্দুর রহিম, পিতা-মোজাফর আলী, সাং-ঘুরচাকাঠি, থানা-বাউফলকে সহ প্রত্যেককে ০১ (এক) বৎসর বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়।

এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসেন, মোবাইল কোর্ট ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে আটককৃত জেলেদের প্রত্যেককে মৎস্য রক্ষা ও সংরক্ষণ আইন ১৯৫০ এর ৫ (২) (খ) ধারা মোতাবেক কারাদন্ডে দন্ডিত করেন।