মিথ্যা মামলায় আসামী করার প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলন।

বাউফল প্রতিনিধি,

পটুয়াখালীর বাউফলে নাজিরপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ জসীম উদ্দিন আকন কে অহেতুক হয়রানিমূলক মামলার আসামী করা, চেক জালিয়াতি করে টাকা দাবির নাটক করা, সাম্প্রতিক সাংবাদিকদের কাছে মিথ্যা ভিত্তিহীন মনগড়া বক্তব্য উপস্থাপনের প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন মোঃ জসীম উদ্দিন আকন। এসময় উপস্থিত ছিলেন- বাউফল উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোঃ মিজান ঢালী,নাজিপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি জনাব মোঃ নাসির মেম্বার।নাজিরপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফরহাদ হোসেন গাজী,নাজিরপুর ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ,, নাজিরপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি জনাব মোঃ জহিরুল ইসলাম রাকিব,,,ও নাজিরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সহ গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।
জসিম উদ্দিন বলেন, মাহবুব আমার ব্যবসায়ী পার্টনার ছিল। দুজনের মতামতের ভিত্তিতে ঢাকা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নেতাদের উপস্থিতিতে দেনা পাওনা মিটিয়ে ব্যবসা ভাগাভাগি করি। পার্টনারে ব্যবসা চলাকালীন সময় মাহবুব আমার চেক চুরি করে। সেই চেক জালিয়াতি করে ব্যবসা ভাগাভাগির কয়েক মাস পর সে (মাহবুব) ৫১লাখ টাকা দাবী করেন যা সর্ম্পূণ মিথ্যা ও হাস্যকর। তিনি বলেন, গত ২৫জানুয়ারি মাহবুবের উপর হামলা হয়। ঘটনার দিন আমি ঢাকা ছিলাম। তাঁর উপর হামলার ঘটনায় আমি জড়িত না। তবুও হয়রনি করার জন্য আমাকে আসামী করে। পরে পুলিশের তদন্তে আমার সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় অব্যহতি দেওয়া হয়।
কিন্তু মাহবুব মোল্লা চলতি মাসের ১৪তারিখ বাউফলের একটি হোটেলে কয়েকজন সাংবাদিকের কাছে আমার এবং পুলিশের বিরুদ্ধে মিথ্যা বানোয়াট তথ্য উপস্থাপন করেন। আমি যার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই।
এবিষয়ে বাউফল থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন,‘ আমাদের কাছে বাদী এবং আসামী উভয়ই ন্যায় বিচার প্রার্থী।
এই ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত, মোবাইল ট্রাকিং ও স্বাক্ষ্য প্রামণে এবং বাদীর জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় আসামী ঘটনার দিন বাউফলে ছিল না। তাই তার (আসামী) সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার স্বার্থে তাকে মামলা থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে।