চাঁদে জমি কিনেছিলেন সুশান্ত!

মাত্র ৩৪ বছর বয়সে ফুরিয়ে গেল বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিংহ রাজপুতের জীবন। এই অল্প বয়সেই ৫৯ কোটির মালিক হয়েছিলেন তিনি। শুধু তাই নয়, চাঁদেও জমি কিনেছিলেন নতুন প্রজন্মের জনপ্রিয় এই অভিনেতা।

জিনিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রত্যেক ছবির জন্য ৫-৭ কোটি পারিশ্রমিক নিতেন সুশান্ত। বিভিন্ন ধরনের গাড়ি কেনার শখ ছিল সুশান্তের। তার মধ্যে বাইক থেকে চার চাকা সবই ছিল।

সবকিছু মিলিয়ে মাত্র ৩৪ বছর বয়সেই ৫৯ কোটির মালিক ছিলেন সুশান্ত।

চাঁদে এক টুকরো জমি কিনেছিলেন বলিউড এই তারকা। ইন্টারন্যাশনাল লুনার সোসাইটি যখন কাগজে বিজ্ঞাপন দিয়ে চাঁদে জমি বিক্রির কথা ঘোষণা করেছিল তখনই এই জমি কেনেন সুশান্ত।

চাঁদের যে অংশটা কিনেছিলেন নায়ক, তার নাম ‘সি অব মাস্কভি’। ইন্টারন্যাশনাল লুনার ল্যান্ডস রেজিস্ট্রি থেকে চাঁদের ওই অংশটি নিজের নামে কিনেছিলেন সুশান্ত। শুধু তাই নয়, সৌরজগত নিয়ে এতটাই আগ্রহী ছিলেন, যে বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ টেলিস্কোপ ছিল তার সংগ্রহে । যার মাধ্যমে শনির বলয় দেখতেন তিনি।

মহাদেবের প্রতি ছিল অসীম বিশ্বাস। দেবাদিদেব মহাদেবের পোস্টও করতেন প্রায়শই। এদিকে হাতে এসেছে সুশান্ত`র পোস্ট মর্টেম রিপোর্ট। আত্মহত্যা বলা হচ্ছে রিপোর্টে।

এদিকে মাত্র ক’দিন পূর্বেই সুশান্ত সিং রাজপুতের ম্যানেজার দিশা সালিআন বহুতল থেকে লাফিয়ে আত্মহত্যা করেন।

১৯৮৬ সালের ২১ জানুয়ারি পটনায় জন্মগ্রহণ করেন সুশান্ত সিংহ রাজপুত। পরবর্তীকালে দিল্লিতে চলে আসে তাঁর পরিবার। দিল্লি কলেজ অব ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়েও ভর্তি হন। কিন্তু সেইসময় থেকেই থিয়েটারের দিকে ঝোঁকেন তিনি। নাচও শেখেন। তার জন্য পড়াশোনা শেষ করতে পারেননি।

অভিনয়ের তাগিদ থেকেই শেষ মেশ মুম্বাইয়ে চলে আসেন সুশান্ত। সেখানে ২০০৮ সালে প্রথম একতা কাপুরের প্রযোজনায় ‘কিস দেশ মে হ্যাঁ মেরা দিল’ সিরিয়ালে অভিনয় করার সুযোগ পান। সিরিয়ালে অল্প দিনের মধ্যেই তাঁর চরিত্রটির মৃত্যু হয়।

তবে সেখান থেকেই একতা কপূরের সঙ্গে বন্ধুত্ব হয়ে যায় তাঁর। সেই সূত্রেই ২০০৯ সালে ‘পবিত্র রিস্তা’ সিরিয়ালে মুখ্য চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পান তিনি। তার পর আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাঁকে।