সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখেই মির্জাগঞ্জে বয়স্কভাতা বিতরণ

মির্জাগঞ্জ প্রতিনিধি:

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে সামাজিক
দূরত্ব না মেনেই সোমবার সকালে সুবিদখালী সরকারি কলেজ মাঠে বিতর করা হয়েছে বয়স্ক ভাতা। নিয়ম নীতির বালাই নেই, নজর নেই প্রশাসন কিংবা সোনালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষের। সচেতন মহলে ক্ষোভ।এতে জনমনে আতঙ্ক বাড়ছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে নেই কর্তৃপক্ষের তদারকি।
সারা বিশ্ব যখন করোনা ভাইরাসের ভয়ে আতঙ্কিত, সবাই হয়ে পড়েছে গৃহবন্দী । প্রশাসন যখন জনসচেতনতা বৃদ্ধি, জনসমাগম ঠেকানোসহ সামাজিক দুরত্ব নিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন ঠিক আতঙ্ক সময়ে মির্জাগঞ্জ সোনালী ব্যাংক কর্তৃক বয়স্ক ভাতা বিতরনে লক্ষ করা যায় তার বিপরীত চিত্র । নিয়ম – নীতির তোয়াক্কা না করে সামাজিক দুরত্ব বজায় না রেখে লোকজনের উপচেপড়া ভীর রেখে বিতরণ করা হয় বয়স্কভাতা । বয়স্কদের জনসমাগম নিয়ে দেখা যায়নি কর্তৃপক্ষের কোন উদ্যোগ।

করোনা আতঙ্ক মাথায় নিয়ে ভাতা গ্রহন করতে আসা বেশ কয়েকজন জানান, আমাদের যেভাবে ব্যাংকের লোকজন নির্দেশ দিয়েছে আমরা সেই ভাবেই তো লাইন দাঁড়িয়েছি । তারা আমাদের স্বাক্ষর রেখে টাকা দিয়ে দেয়,টাকা নিয়ে আমরা চলে আসি। এতে আমাদের দোষের কি। উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মোঃ সানাউল মোর্শেদ বলেন, আমরা অফিস থেকে ব্যাংক অফিসারকে চিঠি দিয়েছি। তারা সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে ভাতা প্রদান করবেন। তারা যদি করোনার মধ্যে সামাজিক দুরত্ব বজায় না রেখে টাকা বিতরন করে সেটা তাদের ব্যর্থতা। গ্রাহকদের অভিযোগ থাকলে ইউএনও স্যারের আলোচনা মোতাবেক এ ব্যাংক থেকে ভাতার টাকা অন্য ব্যাংকে নিয়ে যাওয়া হবে।

এব্যাপারে মির্জাগঞ্জ সোনালী ব্যাংক শাখার ম্যানেজারের সাথে কথা হলে তিনি জানান, উপজেলা ৬টি ইউনিয়নের বয়স্ক ভাতা গ্রহনকারীদের ধারাবাহিকতা ভাবে ভাতা দেয়া হচ্ছে। আজ মির্জাগঞ্জ ও আমড়াগাছিয়া ২ টি ইউনিয়নের সুবিধাভুগিরা এসেছে তাই একটু ভিড় হয়েছে। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সরোয়ার হোসেন বলেন, বিতরনের বিষয়টি আমাকে জানিয়েছিল তাদের সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে বিতরন করতে বলা হয়েছিল।