লকডাউনে দোকান খোলার নিউজ করায় সাংবাদিক লাঞ্চিত বাসকপের নিন্দা ও প্রতিবাদ।

প্রেস রিলিজঃ
কুড়িগ্রাম সদরে লকডাউন উপেক্ষা করে দোকানের অর্ধেক ঝাঁপ খোলা রাখার বিষয়ে পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশিত কে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ পরিষদের কুড়িগ্রাম জেলা কমিটির অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ও বার্তা বাজার পত্রিকার কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধি সুজন মোহন্তকে ডেকে নিয়ে গিয়ে লাঞ্চিত করার অভিযোগ উঠেছে স্হানীয় দোকানীর বিরুদ্ধে।
সুজন মোহন্ত এব্যাপারে জানান,রবিবার (২৬ এপ্রিল) বার্তা বাজার পত্রিকায় “অর্ধেক ঝাঁপ খোলা রেখে কুড়িগ্রামে চলছে দোকানদারি” এই শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। সেখানে পুরো কুড়িগ্রাম শহরের কিছু দোকান খোলা রাখার বাস্তবতা তুলে ধরা হয়। এর জের ধরে সন্ধ্যা ৭টার দিকে সাদ্দির মোড় এলাকার ব্যবসায়ী মানিকের নেতৃত্বে একদল লোক এসে সাংবাদিক সুজন মোহন্ত কে হুমকি দিয়ে যায়। এরপর রাত ৮টার দিকে একই এলাকার আরেক ব্যবসায়ী মামুনের নেতৃত্বে তার ভাই কালাম ও তার বাবা সহ কিছু লোক এসে সাংবাদিক সুজন মোহন্ত কে ডেকে নিয়ে তার উপর হামলা চালায় এবং প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। স্হানীয় ও পরিবারের লোকজন এসে সাংবাদিক সুজন মোহন্ত উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসে। এঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ পরিষদের চেয়ারম্যান এটিএম মমতাজুল করিম ও মহাসচিব এম এ মমিন আনসারী। গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে নেতৃবৃন্দ বলেন করোনা ঝুঁকি মোকাবেলায় সারাদেশে লকডাউন মেনে সকল দোকানপাট বন্ধ রাখতে সরকারি নির্দেশনা জারি করা হলেও কিছু অসাধু ব্যাবসায়ী তাদের মুনাফা লাভের আশায় জনগনকে হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছে। আর এসব চিত্র গণমাধ্যমে প্রকাশ করায় সাংবাদিক কে লাঞ্ছিত ও অপমানিত করা গুরুতর অপরাধ।
আমরা অনতিবিলম্বে সাংবাদিক সুজন মোহন্তের উপর হামলা কারী দোকানদার নামধারী মুনাফা খোর দের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি দাবি করছি।