‘দলের মধ্যে মোস্তাকের মত লোকজনের আনাগোনা শুরু হয়েছে’

মৎস্য ও প্রাণী সম্পদমন্ত্রী শম রেজাউল করিম বলেছেন, দলের মধ্যে বেইমান খুনি মোস্তাকের মত লোকজনের আনাগোনা শুরু হয়েছে। এরা দলের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টির পায়তারা চালাচ্ছে। দলের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টিকারিদের বরদাস্ত করা হবে না। এদের ব্যাপারে সতর্ক থেকে সকল নেতাকর্মিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, প্রয়াত নেতারা নিখাত আওয়ামী লীগ নেতা ছিলেন। তারা আমাদের মাঝে নাই তাদের আদর্শ ও দলের প্রতি আনুগত্য আমাদের স্মৃতিতে চির জাগরুক হয়ে থাকবে।

মন্ত্রী আরো বলেন, মামুন মিয়ার খুনিদের খুঁজে বের প্রকৃত সত্য উদঘাটন করে বিচারের আওতায় আনা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলে কোন আপরাধীই দায় মুক্তি পায়নি এবং ভবিষ্যতে পাবে না।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আব্দুল হামিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথি সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মো. শাহ আলম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি অধ্যক্ষ মো. বেলায়েত হোসেন মো. মহিউদ্দিন আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম মুইদুল ইসলাম, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার কাজি সাখাওয়াত হোসেন, উপজেলা কৃষকলীগ সভাপতি শশাঙ্ক সমদ্দার পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ফারুক হোসেন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিন্টু ও যুবলীগ নেতা মো. নাসির উদ্দিন প্রমুখ।

শেষে প্রয়াত নেতাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। পরে মন্ত্রী সদ্য প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা মামুন মিয়ার কবর জিয়ারত করেন এবং মামুনের শোক সন্তপ্ত পরিবারবর্গের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করে তাদেরকে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।