আবারো প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হচ্ছেন মাহাথির

সাবেক ক্ষমতাসীন জোটের হয়ে আবারও প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হতে চলেছেন মালয়েশিয়ার অন্তবর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। যদিও সপ্তাহখানেক আগে রাজনৈতিক উত্তেজনার মধ্যে ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছিলেন ৯৪ বছর বয়সী এই রাজনৈতিক নেতা।

শনিবার এক বিবৃতিতে ড. মাহাথির বলেন, তিনি প্রধানমন্ত্রী পদে প্রার্থী হতে পুরোপুরি প্রস্তুত।

মালয়েশিয়ার প্রতিনিধি পরিষদের বরাত দিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘আজ সকালে আমি পাকাতান হরপানের নেতাদের সাথে বৈঠক করেছি। আমি এখন আত্মবিশ্বাসী যে, দেওয়ান রাকিয়তে (পার্লামেন্টর নিম্নকক্ষ) সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যদের সমর্থন পাব।’

দেওয়ান রাকিয়তের মোট আসন ২২২টি। তবে সরকার গঠনের জন্য ১১২ জন সদস্যের সমর্থন প্রয়োজন।

মাহাথিরের এই ঘোষণায় ক্ষমতার লড়াইয়ে গত কয়েক দশকের পুরনো রাজনৈতিক শত্রু আনোয়ার ইব্রাহীমের সঙ্গে মাহাথিরের নতুন করে সম্পর্ক গড়ে তোলার বিষয়টিও প্রকাশ্যে এসেছে। তবে ভেঙে যাওয়া পাকাতান হারাপান জোট প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হিসেবে মাহাথির মোহাম্মদকে পূর্ণ সমর্থন দিবে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে।

এর আগে মালয়েশিয়ার অন্তবর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের রাজনৈতিক ভাগ্য অনিশ্চয়তায় পড়ে গেছে বলেই ধরে নেয়া হয়েছিল। নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনে কয়েক দশক ধরে দেশটিতে প্রভাব বিস্তার করে আসা ৯৪ বছর বয়সী এই রাজনীতিকের একটি পরিকল্পনা নাকচ করে দিয়েছে মালয়েশিয়ার রাজা।

প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হিসেবে মাহাথিরকে বাদ দিয়ে তার উত্তরসূরি মহিউদ্দিন ইয়াসিনের নাম ঘোষণা করেছে তার দল। অপ্রত্যাশিতভাবে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে তার সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেয়ার চারদিন পর এই ঘটনা ঘটল।

ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতেই মাহাথির সোমবার পদত্যাগের রাজনৈতিক নাটক করেন কানাঘুষা চলছিল। এবার তিনি প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দেয়ার পর সেই কানাঘুষাই সত্যি হতে চলেছে।

পদত্যাগের পর ৭৩ বছর বয়সী আনোয়ার ইব্রাহীমের সঙ্গে মাহাথিরের জোটটিও ভেঙে গেছে। ২০১৮ সালে নির্বাচনে এই জোট ব্যাপক ব্যবধানে বিজয়ী হয়ে ক্ষমতায় আসে।

বৃহস্পতিবার মাহাথির বলেন, নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের জন্য আগামী ২ মার্চে পার্লামেন্ট ভোট হওয়া উচিত। কিন্তু দেশটির নবম সুলতানের সঙ্গে একটি বৈঠকের পর সেই সম্ভাবনা নাকচ করে দেয়া হয়।

এক বিবৃতিতে রাজ প্রাসাদ জানায়, প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনে এমপিদের সম্মতি আদায়ে রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাদের সঙ্গে অব্যাহত কাজ করে যাওয়া হবে।

পদত্যাগের পর মাহাথিরকে অন্তবর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। ফিলিস্তিনিদের অধিকার নিয়ে বক্তব্য দেয়ার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে তিনি আর কোনো কথা বলেননি।

মাহাথির বলেছিলেন, কোনো প্রার্থী সংখ্যাগরিষ্ঠ এমপির সমর্থন না পাওয়ায় পার্লামেন্টের ভোট দরকার। তার এই বক্তব্যে আনোয়ার ইব্রাহীম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সরকার গঠনে সক্ষম সবচেয়ে সম্ভাব্য ব্যক্তিকে প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করার ক্ষমতা রাজার হাতে রয়েছে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী বাছাইয়ে পার্লামেন্টের ২২২ এমপির সঙ্গে সাক্ষাত করেন মালয়েশিয়ার রাজা। গত দুই দশক ধরেই ক্ষমতার লড়াইয়ে মুখোমুখি মাহাথির মোহাম্মদ ও আনোয়ার ইব্রাহীম। নতুন করে সেই লড়াই সামনে চলে এসেছে।

১৯৮১ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত সরকার চালিয়ে অবসর নিয়েছিলেন মাহাথির। কিন্তু সেই অবসর ভেঙে ২০১৮ সালে নতুন জোট গঠন করে ক্ষমতায় আসেন তিনি। কিন্তু আনোয়ার ইব্রাহীমের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরে প্রতিশ্রুতি পালনে মাহাথিরের অনাগ্রহের কারণে উত্তেজনা বাড়ছিল।

২০১৮ সালে তাদের বিজয়ে ইউনাইটেড মালয়স ন্যাশনাল অরগানাইজেশনের (উমনো) ছয় দশকের শাসনের অবসান ঘটে। প্রধানমন্ত্রী পদ হারানোর পর নাজিব রাজাক বর্তমানে দুর্নীতির দায়ে বিচারের মুখোমুখি।